Home / বাংলা টিপস / ভালোবাসা দিবসে এক দিনেই ৩ দিনের আয়

ভালোবাসা দিবসে এক দিনেই ৩ দিনের আয়

৮ মাস আগে পঞ্চগড় থেকে ঢাকা এসেছিলেন ৬০ বছর বয়সী জহিরুল ইসলাম লেবু।  এরপর শুরু করেন রিকশা চলানো। প্রতিদিন তিনি আয় করতেন ৭০০-৮০০ টাকা। কিন্তু শুক্রবার বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে কপাল খুলে যায় তার। এদিন মাত্র ৭ ঘণ্টা রিকশা চালিয়ে ২৫০৭ টাকা আয় হয়েছে লেবুর।হাসিমাখা মুখে লেবু জানান, আজ অনেক মানুষ ঘুরতে বের হয়েছেন। যাত্রীর অনেক চাপ থাকায় অন্যান্য দিনের তুলনায় রিকশা ভাড়া ছিল কিছুটা বেশি। এছাড়া অনেক যাত্রী খুশি হয়েই ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছেন।শুধু জহিরুল ইসলাম লেবু নয়, শুক্রবার প্রায় বেশিরভাগ রিকশাচালকই অন্যান্য দিনের তুলনায় অনেক বেশি আয় করেছেন। তেমনই একজন ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলা থেকে আসা আব্দুস সালাম। সালাম জানান, ছুটির দিনে অফিস আদালত বন্ধ থাকায় রাস্তায় যানজট তেমন ছিল না। ফলে তারা ট্রিপও বেশি মারতে পেরেছেন।  এতে আয় আরও বেড়েছে। বিকেলে ৫টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত রিকশা চালিয়ে প্রায় ১৭০০ টাকা আয় করেছেন  বলে জানান সালাম।রিকশা চালকরা খুশি হলেও ভাড়া নিয়ে ক্ষুব্ধ অনেক যাত্রী। প্রিয়জনকে নিয়ে বংশাল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে আসা রনক হাসান জানান, অন্যান্য সময় এই পথের ভাড়া ছিল ৬০ টাকা। কিন্তু আজ কোনো রিকশাচালকই ১০০ টাকার কম ভাড়ায় আসতে রাজি হননি। এটা অন্যায়।তবে রনকের মতো সব যাত্রীই ক্ষুব্ধ নয়। তেমনই একজন স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে বইমেলায় আসা বেসরকারি চাকরিজীবী ইউসুফ মাহমুদ। তার মতে, এমন দিন তো আর প্রতিদিন আসে না। বিশেষ দিনে একটু বেশি আয়, এটাইতো গরীব মানুগুলোর আনন্দের উপলক্ষ্য।

৮ মাস আগে পঞ্চগড় থেকে ঢাকা এসেছিলেন ৬০ বছর বয়সী জহিরুল ইসলাম লেবু।  এরপর শুরু করেন রিকশা চলানো। প্রতিদিন তিনি আয় করতেন ৭০০-৮০০ টাকা। কিন্তু শুক্রবার বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে কপাল খুলে যায় তার। এদিন মাত্র ৭ ঘণ্টা রিকশা চালিয়ে ২৫০৭ টাকা আয় হয়েছে লেবুর।হাসিমাখা মুখে লেবু জানান, আজ অনেক মানুষ ঘুরতে বের হয়েছেন। যাত্রীর অনেক চাপ থাকায় অন্যান্য দিনের তুলনায় রিকশা ভাড়া ছিল কিছুটা বেশি। এছাড়া অনেক যাত্রী খুশি হয়েই ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছেন।শুধু জহিরুল ইসলাম লেবু নয়, শুক্রবার প্রায় বেশিরভাগ রিকশাচালকই অন্যান্য দিনের তুলনায় অনেক বেশি আয় করেছেন। তেমনই একজন ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলা থেকে আসা আব্দুস সালাম। সালাম জানান, ছুটির দিনে অফিস আদালত বন্ধ থাকায় রাস্তায় যানজট তেমন ছিল না। ফলে তারা ট্রিপও বেশি মারতে পেরেছেন।  এতে আয় আরও বেড়েছে। বিকেলে ৫টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত রিকশা চালিয়ে প্রায় ১৭০০ টাকা আয় করেছেন  বলে জানান সালাম।রিকশা চালকরা খুশি হলেও ভাড়া নিয়ে ক্ষুব্ধ অনেক যাত্রী। প্রিয়জনকে নিয়ে বংশাল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে আসা রনক হাসান জানান, অন্যান্য সময় এই পথের ভাড়া ছিল ৬০ টাকা। কিন্তু আজ কোনো রিকশাচালকই ১০০ টাকার কম ভাড়ায় আসতে রাজি হননি। এটা অন্যায়।তবে রনকের মতো সব যাত্রীই ক্ষুব্ধ নয়। তেমনই একজন স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে বইমেলায় আসা বেসরকারি চাকরিজীবী ইউসুফ মাহমুদ। তার মতে, এমন দিন তো আর প্রতিদিন আসে না। বিশেষ দিনে একটু বেশি আয়, এটাইতো গরীব মানুগুলোর আনন্দের উপলক্ষ্য।

৮ মাস আগে পঞ্চগড় থেকে ঢাকা এসেছিলেন ৬০ বছর বয়সী জহিরুল ইসলাম লেবু।  এরপর শুরু করেন রিকশা চলানো। প্রতিদিন তিনি আয় করতেন ৭০০-৮০০ টাকা। কিন্তু শুক্রবার বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে কপাল খুলে যায় তার। এদিন মাত্র ৭ ঘণ্টা রিকশা চালিয়ে ২৫০৭ টাকা আয় হয়েছে লেবুর।হাসিমাখা মুখে লেবু জানান, আজ অনেক মানুষ ঘুরতে বের হয়েছেন। যাত্রীর অনেক চাপ থাকায় অন্যান্য দিনের তুলনায় রিকশা ভাড়া ছিল কিছুটা বেশি। এছাড়া অনেক যাত্রী খুশি হয়েই ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছেন।শুধু জহিরুল ইসলাম লেবু নয়, শুক্রবার প্রায় বেশিরভাগ রিকশাচালকই অন্যান্য দিনের তুলনায় অনেক বেশি আয় করেছেন। তেমনই একজন ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলা থেকে আসা আব্দুস সালাম। সালাম জানান, ছুটির দিনে অফিস আদালত বন্ধ থাকায় রাস্তায় যানজট তেমন ছিল না। ফলে তারা ট্রিপও বেশি মারতে পেরেছেন।  এতে আয় আরও বেড়েছে। বিকেলে ৫টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত রিকশা চালিয়ে প্রায় ১৭০০ টাকা আয় করেছেন  বলে জানান সালাম।রিকশা চালকরা খুশি হলেও ভাড়া নিয়ে ক্ষুব্ধ অনেক যাত্রী। প্রিয়জনকে নিয়ে বংশাল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে আসা রনক হাসান জানান, অন্যান্য সময় এই পথের ভাড়া ছিল ৬০ টাকা। কিন্তু আজ কোনো রিকশাচালকই ১০০ টাকার কম ভাড়ায় আসতে রাজি হননি। এটা অন্যায়।তবে রনকের মতো সব যাত্রীই ক্ষুব্ধ নয়। তেমনই একজন স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে বইমেলায় আসা বেসরকারি চাকরিজীবী ইউসুফ মাহমুদ। তার মতে, এমন দিন তো আর প্রতিদিন আসে না। বিশেষ দিনে একটু বেশি আয়, এটাইতো গরীব মানুগুলোর আনন্দের উপলক্ষ্য।

৮ মাস আগে পঞ্চগড় থেকে ঢাকা এসেছিলেন ৬০ বছর বয়সী জহিরুল ইসলাম লেবু।  এরপর শুরু করেন রিকশা চলানো। প্রতিদিন তিনি আয় করতেন ৭০০-৮০০ টাকা। কিন্তু শুক্রবার বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে কপাল খুলে যায় তার। এদিন মাত্র ৭ ঘণ্টা রিকশা চালিয়ে ২৫০৭ টাকা আয় হয়েছে লেবুর।হাসিমাখা মুখে লেবু জানান, আজ অনেক মানুষ ঘুরতে বের হয়েছেন। যাত্রীর অনেক চাপ থাকায় অন্যান্য দিনের তুলনায় রিকশা ভাড়া ছিল কিছুটা বেশি। এছাড়া অনেক যাত্রী খুশি হয়েই ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছেন।শুধু জহিরুল ইসলাম লেবু নয়, শুক্রবার প্রায় বেশিরভাগ রিকশাচালকই অন্যান্য দিনের তুলনায় অনেক বেশি আয় করেছেন। তেমনই একজন ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলা থেকে আসা আব্দুস সালাম। সালাম জানান, ছুটির দিনে অফিস আদালত বন্ধ থাকায় রাস্তায় যানজট তেমন ছিল না। ফলে তারা ট্রিপও বেশি মারতে পেরেছেন।  এতে আয় আরও বেড়েছে। বিকেলে ৫টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত রিকশা চালিয়ে প্রায় ১৭০০ টাকা আয় করেছেন  বলে জানান সালাম।রিকশা চালকরা খুশি হলেও ভাড়া নিয়ে ক্ষুব্ধ অনেক যাত্রী। প্রিয়জনকে নিয়ে বংশাল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে আসা রনক হাসান জানান, অন্যান্য সময় এই পথের ভাড়া ছিল ৬০ টাকা। কিন্তু আজ কোনো রিকশাচালকই ১০০ টাকার কম ভাড়ায় আসতে রাজি হননি। এটা অন্যায়।তবে রনকের মতো সব যাত্রীই ক্ষুব্ধ নয়। তেমনই একজন স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে বইমেলায় আসা বেসরকারি চাকরিজীবী ইউসুফ মাহমুদ। তার মতে, এমন দিন তো আর প্রতিদিন আসে না। বিশেষ দিনে একটু বেশি আয়, এটাইতো গরীব মানুগুলোর আনন্দের উপলক্ষ্য।

৮ মাস আগে পঞ্চগড় থেকে ঢাকা এসেছিলেন ৬০ বছর বয়সী জহিরুল ইসলাম লেবু।  এরপর শুরু করেন রিকশা চলানো। প্রতিদিন তিনি আয় করতেন ৭০০-৮০০ টাকা। কিন্তু শুক্রবার বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে কপাল খুলে যায় তার। এদিন মাত্র ৭ ঘণ্টা রিকশা চালিয়ে ২৫০৭ টাকা আয় হয়েছে লেবুর।হাসিমাখা মুখে লেবু জানান, আজ অনেক মানুষ ঘুরতে বের হয়েছেন। যাত্রীর অনেক চাপ থাকায় অন্যান্য দিনের তুলনায় রিকশা ভাড়া ছিল কিছুটা বেশি। এছাড়া অনেক যাত্রী খুশি হয়েই ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছেন।শুধু জহিরুল ইসলাম লেবু নয়, শুক্রবার প্রায় বেশিরভাগ রিকশাচালকই অন্যান্য দিনের তুলনায় অনেক বেশি আয় করেছেন। তেমনই একজন ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলা থেকে আসা আব্দুস সালাম। সালাম জানান, ছুটির দিনে অফিস আদালত বন্ধ থাকায় রাস্তায় যানজট তেমন ছিল না। ফলে তারা ট্রিপও বেশি মারতে পেরেছেন।  এতে আয় আরও বেড়েছে। বিকেলে ৫টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত রিকশা চালিয়ে প্রায় ১৭০০ টাকা আয় করেছেন  বলে জানান সালাম।রিকশা চালকরা খুশি হলেও ভাড়া নিয়ে ক্ষুব্ধ অনেক যাত্রী। প্রিয়জনকে নিয়ে বংশাল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে আসা রনক হাসান জানান, অন্যান্য সময় এই পথের ভাড়া ছিল ৬০ টাকা। কিন্তু আজ কোনো রিকশাচালকই ১০০ টাকার কম ভাড়ায় আসতে রাজি হননি। এটা অন্যায়।তবে রনকের মতো সব যাত্রীই ক্ষুব্ধ নয়। তেমনই একজন স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে বইমেলায় আসা বেসরকারি চাকরিজীবী ইউসুফ মাহমুদ। তার মতে, এমন দিন তো আর প্রতিদিন আসে না। বিশেষ দিনে একটু বেশি আয়, এটাইতো গরীব মানুগুলোর আনন্দের উপলক্ষ্য।

৮ মাস আগে পঞ্চগড় থেকে ঢাকা এসেছিলেন ৬০ বছর বয়সী জহিরুল ইসলাম লেবু।  এরপর শুরু করেন রিকশা চলানো। প্রতিদিন তিনি আয় করতেন ৭০০-৮০০ টাকা। কিন্তু শুক্রবার বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে কপাল খুলে যায় তার। এদিন মাত্র ৭ ঘণ্টা রিকশা চালিয়ে ২৫০৭ টাকা আয় হয়েছে লেবুর।হাসিমাখা মুখে লেবু জানান, আজ অনেক মানুষ ঘুরতে বের হয়েছেন। যাত্রীর অনেক চাপ থাকায় অন্যান্য দিনের তুলনায় রিকশা ভাড়া ছিল কিছুটা বেশি। এছাড়া অনেক যাত্রী খুশি হয়েই ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছেন।শুধু জহিরুল ইসলাম লেবু নয়, শুক্রবার প্রায় বেশিরভাগ রিকশাচালকই অন্যান্য দিনের তুলনায় অনেক বেশি আয় করেছেন। তেমনই একজন ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলা থেকে আসা আব্দুস সালাম। সালাম জানান, ছুটির দিনে অফিস আদালত বন্ধ থাকায় রাস্তায় যানজট তেমন ছিল না। ফলে তারা ট্রিপও বেশি মারতে পেরেছেন।  এতে আয় আরও বেড়েছে। বিকেলে ৫টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত রিকশা চালিয়ে প্রায় ১৭০০ টাকা আয় করেছেন  বলে জানান সালাম।রিকশা চালকরা খুশি হলেও ভাড়া নিয়ে ক্ষুব্ধ অনেক যাত্রী। প্রিয়জনকে নিয়ে বংশাল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে আসা রনক হাসান জানান, অন্যান্য সময় এই পথের ভাড়া ছিল ৬০ টাকা। কিন্তু আজ কোনো রিকশাচালকই ১০০ টাকার কম ভাড়ায় আসতে রাজি হননি। এটা অন্যায়।তবে রনকের মতো সব যাত্রীই ক্ষুব্ধ নয়। তেমনই একজন স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে বইমেলায় আসা বেসরকারি চাকরিজীবী ইউসুফ মাহমুদ। তার মতে, এমন দিন তো আর প্রতিদিন আসে না। বিশেষ দিনে একটু বেশি আয়, এটাইতো গরীব মানুগুলোর আনন্দের উপলক্ষ্য।

Check Also

বেদেনা আমাদের কি কি উপকার করে?

ডালিম রোগীর উপকারি ফল হিসেবে খুবই জনপ্রিয়। ডালিমকে স্বর্গীয় ফল বলা হয়। কারণ এর মধ্যে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *